Hello, বন্ধু আজ আমি এই পোস্ট এর মাদ্ধমে তোমাদের সাথে শেয়ার করবো কিভাবে ফ্রি ব্লগ বানাবো ব্লগ বানানো যাই সেই বিষয়ে।

So, তুমি যদি ব্লগ তৈরির টিউটোরিয়াল জানার জন্য আগ্রহী হয়ে থাকো বা নিজের একটি ব্লগ বানানোর জন্য আগ্রহী থাকো তাহলে আমি বলবো এই আর্টিকেল টি তোমার জন্য খুব সাহায্যকর হবে বলে মনে করি।

কারণ এই আর্টিকেল এ কিভাবে ফ্রি ব্লগ বানানো যাই কারো সাহায্য না নিয়ে তার সমস্ত টিপস এবং ব্লগ তৈরির টিউটোরিয়াল, সমস্ত টিপস পাবে।

এবার কথা হলো ব্লগ বানিয়ে কি করবো বা কেন ব্লগ বানাবো ?

আশা করি এটা সবাই যানো। যারা না যানো তাদের তাদের জন্য বলি ; ব্লগ হলো এমন একটা product যেটার সাহায্যে তুমি অন্য কারোর প্রব্লেম solve করে কিছু টাকা কমতে পারবে বিভিন্ন উপায় এ। উদহারণ আমি যেমন তোমাদের কে এই ব্লগ আর্টিকেলে এর মাধ্যমে বিভিন্ন সাহায্য করে থাকি এবং তার জন্য আমি কিছু টাকা ইনকাম করি google Adsence বা অন্য কোনো ad নেটওয়ার্ক থেকে।

So,তুমি ও চাইলে তোমার ইন্টারেস্ট বা অভিজ্ঞতার উপর একটি ব্লগ বানিয়ে টাকা ইনকাম করতে পারবে। যেমন তোমার যদি কম্পিউটার, মেডিসিন বা অন্যন্য বিষয় এর উপর অভিজ্ঞতা থাকে তাহলে তুমি সেই বিষয় এ একটি বাংলা বা অন্য কোনো ভাষার উপর ব্লগ বানিয়ে সেখান তার রিলেটেড আর্টিকেল লিখে মানুষের সাহায্য করে ব্লগ থেকে টাকা ইনকাম করতে পারবে।

আর একটা কথা আমি নতুন ব্লগার দের জানাতে চাই তোমাদের কে একটু ধৈর্য্য (passion) রাখতে হবে ব্লোগ্গিং থেকে ইনকাম করতে গেলে কারণ নতুন দের সবকিছু জানতে একটু টাইম লাগে যেমন SEO, ভালো একটা কনটেন্ট লেখা, তোমার user কে সাহায্য করা এছাড়া আরো অনেক কিছু।

এগুলো যত জানবে ব্লোগ্গিং এর উপর তোমার ইন্টারেস্ট বাড়বে এবং ব্লোগ্গিং থেকে অনেক টাকা ইনকাম করতে পারবে নিজের একটা নতুন লাইফ বানাতে পারবে। এই ব্লোগ্গিং টাকে অনেক ব্লগার নিজের ব্যবসা হিসাবে কাজে লাগিয়ে লক্ষ লক্ষ টাকা ইনকাম করছে যেমন – ইন্ডিয়াতে “Shoutmeloud.com” “Bloggerspassion.com” “mouthshut.com” “tryootech.com” এছাড়া আরো অনেকে যারা এই ব্লগিং করে success হয়েছে।

তুমি যদি ধৈর্য রেখে ১-২ বছর ভালোভাবে করলে তাহলে তুমিও success হতে পারো আর ভালো experience এর সাথে কাজ করলে ৬ মাস পর থেকে তোমার ব্লগ থেকে ইনকাম শুরু করতে পারবে।

এছাড়া বাংলা ভাষায় যারা নতুন ব্লগ শুরু করবে তাদের জন্য ব্লগার best প্লাটফ্রম কারণ তুমি ব্লগ্গার এ বাংলা, হিন্দি বা অন্য কোনো মাতৃ ভাষাতে ব্লগ খুললে গুগল এ rank করতে কোনো প্রব্লেম হবে না কারণ এই ভাষাতে খুব কম ব্লগ থাকে এবং তোমার সাইট এ visitor পাওয়া খুব সহজ হয়ে যাবে (তোমার সাইটে যত লোক বা visitor আসবে তুমি ততো বেশি টাকা ইনকাম করতে পারবে) ।

কিন্তু যদি তুমি English ভাষায় ব্লগ খুলতে চান তাহলে আমি Bloggar প্লাটফর্ম কে বাদ দিয়ে WordPress রেকমেন্ড করবো কারণ এখানে প্রচুর কম্পিটিশন আছে এছাড়া ইংরেজি ব্লগ google এ rank করতে একটু দেরি হয় bloggar প্লাটফ্রমে। এবং WordPress ব্লগ খোলার জন্য তোমাকে কিছু টাকা খরচ করতে হবে. তবে তোমার ইংরেজি ভাষার সাইট একবার rank হয়ে গেলে তুমি বাংলা বা অন্য কোনো ভাষার ব্লগ থেকে অনেক বেশি টাকা ইনকাম করতে পারবে।

সুতরাং লেট না করে চলুন জানা যাক ব্লগ তৈরির নিয়ম।

ব্লগ তৈরী করার সময় তোমাকে মনে রাখতে হবে তুমি কোন প্লাটফ্রম এ ব্লগ তৈরী করতে চান? কারণ ব্লগ তৈরী করার জন্য অনেক platform আছে যেমন ; Blogger, WordPress, Wix, এছাড়া আরো অনেক। কিন্তু আজ আমি বলবো ব্লগার প্লাটফ্রম এ ফ্রি ব্লগ বানানোর বিষয়।

কারণ blogger প্লাটফ্রম টি তোমার আমার মতো ব্লগার দের জন্য প্রাথমিক অবস্থা তে সেরা বলে আমি মনে করি কারণ আমার জানা প্রতিটি ব্লগার এই প্লাটফম টি থেকে তার ব্লোগ্গিং ক্যারিয়ার শুরু করেছে এমন কি আমিও। এবং কিছু দিন পর ব্লগার প্লাটফ্রম থেকে wordpress এ ওয়েবসাইট টি migrate করি কিন্তু এ ক্ষেত্রে তোমার কিছু টাকা খরজ হবে যেমন ডোমেইন এবং হোস্টিং কিনতে কারণ blogger আর wordpress এর মধ্যে কিছু পার্থক্য আছে যেটা আমি কিছুদিন পরে আপডেট করবো।

চাইলে তুমি WordPress বা Wix এ ফ্রি ব্লগ বানাতে পারো। কিভাবে ফ্রীতে বানাতে হয় এই বিষয় এ খুব শিগ্গিরী আর্টিকেল দেব।

এবার কথা হলো Blogger প্লাটফর্ম কে কেন আমরা নির্বাচন করবো? WordPress বা Wix এর মতো জনপ্রিয় প্লাটফ্রম বাদ দিয়ে। কারণ ওয়ার্ডপ্রেস বা Wix নতুন ব্লগার দের জন্য একটু কঠিন blogger এর তুলনায়।

এবার কথা হলো ব্লগ টপিক, কোন বিষয় এর উপর ব্লগ বানাবো? এই ব্লগ টপিক টি হলো খুবই গুরুর্ত্বপূর্ণ কারণ একটা ব্লগ টপিক হলো সেই ব্লগ এর পরিচয়। সেক্ষেত্রে আমি তোমাকে বলবো তোমার অভিজ্ঞতা বা ইন্টারেস্ট এর উপর ব্লগ বানানোর জন্য। কারণ আমি যদি এই ব্লগ সাইটে অন্য কোনো বিষয়ে আর্টিকেলে লিখি যেই বিষয়ের উপর আমার কোনো ভালো অভিজ্ঞতা নেয় তাহলে আমার পোস্ট টি গুগলে কখনো rank করবে না এবং ওই বিষয়ের উপর যত টপ ব্লগ আছে তাদের কে bit করতে পারবো না।

এছাড়া নিজের অভিজ্ঞতা বা ইন্টারেস্ট এর উপর ব্লগ না বানালে কিছু দিন পর তুমি ব্লগ আর্টিকেলে লেখার টপিক খুঁজে পাবেন এবং একটি ব্লগে বিভিন্ন ধরণের আর্টিকেলে দিলে তোমার ব্লগ visitor আসার চান্স অনেক কমে যাবে এবং ব্লগ এর reputation খারাব হয়ে যাবে।

সুতরাং সবসময় চেষ্টা করুন তোমার সাইটের টপিক টি ঠিক রাখার জন্য কারণ যদি কোনো একটি টপিক এর উপর আদা আলাদা বিষয়ে আর্টিকেলে তোমার ব্লগে শেয়ার করো তাহলে তুমি খুব শিঘ্রীই success হতে পারবে।

আরএকটি বিষয় হলো তোমার ব্লগ টপিক ঠিক করার পর তোমাকে একটু তোমার সাইটের নাম নিয়ে একটু ভাবতে হবে যে তুমি তোমার সাইটের কি নাম রাখতে চাও কারণ এটি হবে তোমার সাইটের পরিচয়। আমি বলবো তোম মনের মতো একটা unique নাম রাখতে কিন্তু খুব লম্বা না কারণ সমস্ত user তোমার এই ব্লগ নাম থেকে চিনবে যেমন তোমরা আমার এই Benglablog.site টি ব্লগ সম্মন্দে চেনো তেমনি।

Blogger এ কিভাবে ফ্রি ব্লগ বানাবো ?

একটি ব্লগ খোলার জন্য তোমার কাছে একটা computer বা laptop থাকতে হবে সাথে ইন্টারনেট কানেকশন ও থাকতে হবে এবং একটা গুগল জিমেইল বা ইমেইল একাউন্ট থাকা দরকার কারণ একটি ব্লগ খুলতে গেলে এগুলো খুব প্রয়জন। তুমি চাইলে এই একই প্রসেস ফলো করে মোবাইল এর মাদ্ধমে ব্লগ বানাতে পারে কিন্তু সেক্ষেত্রে তোমার অনেক প্রবেলম এর সম্মুখীন হতে হবে।

So, তোমার কাছে উপরে বলা জিনিস গুলো থাকলে তুমি নিচে দেওয়া টিপস গুলো একবার ছাড়া দুবার ভালোকরে পড়লে খুব সহজে একা একা ব্লগ খুলতে পারবে blogger এ।

তো চলো ব্লগ খোলার টিপস গুলো দেখে নিই।

স্টেপ no ১ : তুমি তোমার computer বা laptop এ গুগল browser টি খেলুন এবং সেখানে আপনার ইমেইল একাউন্ট টি লগইন করুন তারপর আপনার browser এ গিয়ে Blogger.com সার্চ করুন, বা google.com এ গিয়ে ডট ডট আইকন টি তে ক্লিক করে Blogger অপসন টিতে ক্লিক করে নিচে দেওয়া ছবির মতো এটি পেজ খুলবে সেখানে তোমার create your blog বাটন টিতে ক্লিক করতে হবে।

স্টেপ no 2 : Create your blog বাটন টিতে ক্লিক করার পর তোমাকে তোমার ইমেইল একাউন্ট টি কানেক্ট করতে হবে। তার জন্য তোমাকে ইমেইলটা আগে থেকে লগইন করে রাখতে হবে। যদি লগইন করে রাখো তাহলে তোমার সামনে নিচে picture টির মতো একটি অপসন আসবে সেখানে তুমি তোমার ইমেইল এর উপর ক্লিক করে ইমেইল টি conform করে দিন।

স্টেপ no ৩ : এমিল conform হয়ে গেলে তোমার ব্লগ এর টাইটেল (নাম) লেখার জন্য একটা পেজ খুলবে নিচে picture এর মতো সেখানে তুমি তোমার ব্লগ টাইটেল তো লিখে Next বাটন টিতে ক্লিক করুন।

তবে ব্লগ টাইটেল টি লেখার তোমাকে মনে রাখতে হবে যে তোমার ব্লগ টপিক এর উপর ভিত্তি করে যেন একটি unique ব্লগ টাইটেল রাখতে হবে যেমন আমাদের এই বাংলা ব্লগ। এইরকম একটা টাইটেল রাখতে হবে যেটা তোমার টপিক এর সাথে মিল হয়।

স্টেপ no ৪ : ব্লগ টাইটেল টি লিখে next বাটন টিতে ক্লিক করলে তোমাকে তোমার সাইট এর Url address লেখার অপসন আসবে সেখানে তোমার URL address টি লিখতে হবে কোনো space ছাড়াই কারণ এটার মাদ্ধমে সমস্ত ইন্টারনেট ব্যাবহারকারী তোমার ওয়েবসাইট এ প্রবেশ করবে যেমন ; blogshikun.blogspot.com, abcd.blogspot.com এছাড়া আরো অন্য url. blogspot.com থাকার কারণ আমরা ফ্রি ব্লগ খুলছি কোনো টাকা ছাড়াই।

তবে আমি রেকমেন্ড করবো ব্লগ টাইটেল আর ব্লগ url টা যেন একই থেকে তাহলে খুব ভালো হবে আর যদি একই টাইটেলের url available না থাকে তাহলে তুমি সেক্ষেত্রে তুমি url address টি একটু পরিবর্তন করে চেক করে নিতে পারো। যদি সেটি available থাকে তাহলে তুমি Next বাটন টিতে ক্লিক করে এগিয়ে যেতে পারো (আর টাইটেল টি ব্লগ খোলার পরেও পরিবর্তন করা যাবে) ।

আপনি চাইলে blogspot.com কে উড়িয়ে এই benglablog.site এর মতো একটা উনিকে url address লাগাতে পারো, তবে তোমার ক্ষেত্রে ডোমেইন এর জন্য কিছু টাকা খরচ করতে হবে। কিভাবে একটা ডোমেইন নাম blogger ব্লগে connect করতে হয় সেবিষয়ে পরবর্তী আর্টিকেলে এ শেয়ার করব।

স্টেপ no ৫ : Url লিখে নেক্সট বাটন ক্লিক করার পর তোমার টাইটেল টি আবার লিখুন সাথে তোমার ব্লগের জন্য একটা ২০০ ওয়ার্ড এর ছোট একটি বিবরণ লিখুন নিচে দেয়া picture এর মতো আর “Finish” বাটন এ ক্লিক করুন।

স্টেপ no ৬ : তুমি Finish বাটনে ক্লিক করার পর ১মিনিট এর মতো processing টাইম নেবে তোমার ব্লগ টি তৈরির জন্য তারপর তোমাকে নিচে দেওয়া ছবির মতো একটা ডেশবোর্ড আসবে সেখনে তুমি x এ ক্লিক করে নোটিফেকেশন গুলো মুছেফেলতে পারো এবং View blog অপশন টিতে ক্লিক করে তোমার ব্লগের preview দেখতে পারবে।

এরকম ব্লগ ড্যাশবোর্ড চলে আসলে তোমার ব্লগ খোলা ১০০% complete হবে এবং তুমি এই ব্লগে সাইটে দেওয়া অপশন গুলো ব্যাবহার করে তোমার ব্লগকে পপুলার করতে পারবে এবং ব্লগে নতুন নতুন পোস্ট বা পেজ আপলোড করে সেখান থেকে google adsance এর মাধ্যমে ইনকাম করতে পারবে।

ব্লগার ড্যাশবোর্ড পরিচয় :

আপনি যদি ব্লগের ড্যাশবোর্ড সম্পর্কে না জানেন তাহলে তুমি নিচে দয়া টিপস গুলো একবার দেখুন আর ব্লগ ব্যাবহারের নিয়ম জানুন।

Posts : ব্লগার পোস্ট অপশনটিতে ক্লিক করে আপনার ব্লগে আপডেট করা সমস্ত পোস্ট গুলো দেখতে পাবে। এছাড়া ‘new post’ বাটন এ ক্লিক করে নতুন পোস্ট আপডেট করতে পারবেন।

Stats : এই অপশনটিতে ক্লিক করে আপনি দেখতে পাবেন আপনার ব্লগে কত user প্রবেশ করেছে এবং আজকে কতগুলো পোস্ট দেখেছে এছাড়া আরো অনেক কিছু।

Comments : এই অপশনে গেলে তুমি দেখতে পাবে তোমার ব্লগে কে কি মন্তব্য করছে এবং কোন পোস্ট এর উপর করছে তার উপর সমস্ত ধারণা পাবে।

Earnings : এই অপশনটিতে ক্লিক করে তোমার ইমেইলের মাধ্যমে গুগল AdSense একাউন্ট খুলে তোমার ওয়েবসাইটে বিজ্ঞাপন দেখিয়ে টাকা ইনকাম করতে পারবে।

Page : এই পেজ অপশনটি অনেকটা পোস্ট এর মতো এখানে তুমি নতুন পেজ create করে তোমার ব্লগের কাজে লাগাতে পারবে যেমন কোনো নতুন আপডেট বা about, contact, privacy policy এই সমস্ত পেজ গুলো তৈরী করতে পারবে।

Layout : এই অপশনটিতে ক্লিক করে তুমি তোমার ব্লগের header, footer, sitebar এছাড়া অন্য অন্য অপশন গুলো manage করতে পারবে।

Theme : এখানে ক্লিক করে আপনি আপনার ব্লগে থিম কে customize করতে পারবে বা আপনার কোনো প্রিমিয়াম থিম থাকলে সেটাকে আপলোড করতে পারবে।

Settings : এই অপশনটিতে গেলে আপনি আপনার ব্লগের সমস্ত সেটিং কে তোমার মতো করে ঠিক করতে পারবে যেমন – টাইটেল, ডিস্ক্রিপশন, Custom ডোমেইন যুক্ত করা, কমেন্ট ম্যানেজমেন্ট এছাড়া আরো অনেক কিছু।


আমাদের শেষ কথা :

ব্লগারে ব্লগ বানানোর পর ব্লগের ড্যাশবোর্ড এ যত অপশন আছে বা ব্লগ setting এর সম্পর্কে আমরা নতুন নতুন আর্টিকেলে দেব যেগুলো তোমার ব্লগ কে উন্নতি করতে সাহায্য করবে। সেই সমস্ত আপডেট পেতে আমাদের ব্লগটি subscribe করে রাখুন।

আশাকরি এই আর্টিকেলে টির মাধ্যমে তুমি কিভাবে ফ্রি ব্লগ বানাবে তার জানকারী আপনাকে সাহায্য করেছে? যদি সাহায্য করে থেকে তাহলে আজই তোমার ব্লগ বানানো শুরু করুন, যদি ব্লগ বানাতে গিয়ে কোনো অসুবিধা হয় তাহলে নিচে comment বক্সে comment করে জানান আমি অবশই সাহায্য করবো। আর আপনি যদি প্রফেশনাল ওয়েবসাইট বানাতে চান তাহলে কন্টকাট করুন [email protected]

তোমাদের কাছে একটা request করবো এই পোস্টটি বেশি বেশি করে শেয়ার করার জন্য।